তাজা খবর:
Home / breaking / অসহায়দের পাশে থাকতে বন্ধুরা মিলে গড়লেন আরকোয়াম ফাউন্ডেশন
অসহায়দের পাশে থাকতে বন্ধুরা মিলে গড়লেন আরকোয়াম ফাউন্ডেশন

অসহায়দের পাশে থাকতে বন্ধুরা মিলে গড়লেন আরকোয়াম ফাউন্ডেশন

আল রাকিবঃ শনিবার বিকেলে রাজধানীর নয়া পল্টন, ফকিরাপুল, জুরাইন এবং মিরপুরের কাজিপাড়া ও পল্লবী এলাকার ৫০ জন অস্বচ্ছল মানুষের মাঝে এসব খাদ্য সামগ্রী তুলে দেয়া হয়। এ সময় সংগঠনটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সক্রিয় সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

সংগঠনটির সভাপতি হোসেন রাজ সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক ডা. রাসেল মিয়া জানান, দেশের যেকোনো দুর্যোগে সব শ্রেণির পেশার মানুষের পাশে দাঁড়াতে চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি থেকে ২৬ জন বন্ধু মিলে তৈরি করেছেন  এই সংগঠণ । নিজস্‌ব  তৈরি করা তহবিল থেকে এখনও পর্যন্ত তারা বেশ কিছু বিপদগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন ।

সভাপতি হোসেন রাজ সোহেল আরও বলেন, আরকোয়াম ফাউন্ডেশনের লক্ষ্য হচ্ছে বাংলাদেশের দরিদ্র শিশুদের শিক্ষার ব্যবস্থা এবং দেশের অবহেলিত, ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানো। এছাড়াও গরিব ও অসচ্ছল রোগীদের সাহায্য করা, স্পেশাল চাইল্ড (প্রতিবন্ধীদের) নিয়ে কাজ করা, সুবিধা বঞ্চিত মা-বাবাদের জন্য বৃদ্ধাশ্রম, অসহায় মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সাহায্য, পথশিশুদের শিক্ষা ও পূনর্বাসন, শিশুশ্রমিকদের শিক্ষা সহ কর্মস্থলের ব্যবস্থা করা, স্বেচ্ছায় রক্তদানের ব্যবস্থা করা, দ্বীন প্রচার, এতিমখানা ও মাদরাসা নির্মাণ, মাদকাসক্তদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা, সুবিধা বঞ্চিত বিধবা নারীদের সাহায্য করা এবং খাদ্য, পুষ্টি ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার কাজে সহায়তা করা আরকোয়াম ফাউন্ডেশনের মূল লক্ষ্য।

সংগঠনটির সহ-সভাপতি ডাঃ ফয়েজ আহমেদ মুরাদ বলেন , আরকোয়াম ফাউন্ডেশনের  এ ধরণের কার্যক্রম সবসময় অব্যহত থাকবে  এবং ভবিষ্যৎ এ  আরকোয়াম ফাউন্ডেশন বৃহৎ আকারে বিস্তৃত অর্জন করবে। আরকোয়াম ফাউন্ডেশন সবসময় দেশের মানুষের পাশে থাকবে এ জন্য তিনি দেশের মানুষের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করেছেন।

 

ডাঃ রাসেল মিয়া (সাধারণ সম্পাদক ), আজ (শনিবার) আরকোয়াম ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে গরিব ও অসচ্ছল মানুষের মাঝে কিছু উপহার সামগ্রী তুলে দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে নয়া পল্টন, ফকিরাপুল, জুরাইন এবং মিরপুরের কাজিপাড়া ও পল্লবী এলাকার অসহায় মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী তুলে দিয়েছি। ইনশাল্লাহ সামনে আরো বেশি সংখ্যক পরিবারের মুখে হাসি ফোটাতে আরকোয়াম ফাউন্ডেশনের সদস্যরা এগিয়ে আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Close